আসুন হাদিয়া দেইঃ একটি সুন্নাহকে বাঁচাবো বলে।

20

একটি সুন্নাহকে বাঁচাবো বলে: আসুন হাদিয়া দেই

এক: কিছু পেতে সবারই ভাল লাগে। আবার কিছু দিতেও ভাল লাগে। এই দেয়া-নেয়ার পালাটাকেই যদি সুন্নাতের মোড়কে ফেলতে পারি, তাহলে দুনিয়া-আখিরাত দুটোতেই লাভ।

দুই: নবিজী (সা.) বলেছেন:
-তোমরা পরস্পরকে হাদিয়া দাও, তাহলে তোমাদের মাঝে ভালবাসা সৃষ্টি হবে।

তিন: হাদিয়া দেয়া মানে কি, দামী কিছু? না, সামান্য একটা বস্তুও হাদিয়া হতে পারে। ছোট্ট একটা বই, পাঁচটাকার একটা গোলাব, একটাকার একটা চকলেট, কমদামী একটা কলমও হাদিয়া হতে পারে।
*** দাম-ওজন আর আকার মোটেও মূখ্য নয়, মূখ্য হলো আন্তরিকতা-ভালোবাসা আর সুন্নাতের নিয়্যাত।

চার: আনাস বিন মালিক (রা.) বলেছেন:
-বারীরাহ (রা.) একটুকরা সাদাকার গোশত পেলেন। বারীরাহ সেই গোশত নবিজীকে (সা.) হাদিয়া হিশেবে পেশ করলেন।
নবিজী (সা.) হৃষ্টচিত্তে হাদিয়া গ্রহণ করে বললেন:
-এই গোশত বারীরার জন্যে সাদাকা হতে পারে, কিন্তু আমার জন্যে তা হাদিয়া।

পাঁচ: আসুন আমরা নিয়মিত একে অপরকে অল্প কিছু হলেও হাদিয়া দেই। ভাই তার ভাইকে, ভাই তার বোনকে, বোন তার ভাইকে, সন্তান তার পিতামাতাকে। স্বামী তার স্ত্রীকে, স্ত্রী তার স্বামীকে। শিষ্য তার উস্তাজকে, এমনকি উস্তাজও তার শিষ্যকে হাদিয়া দেই। শত্রু তার শত্রুকে।

= শুধু এই একটি সুন্নাতের মাধ্যমেই আমরা পরিবারে, সমাজে, রাষ্ট্রে, বিশ্বে শান্তির সুবাতাস বইয়ে দিতে পারি।

ছয়: আমাদের শি‘আর (স্লোগান) হলো:
– ইন তুতীঊহু তাহতাদু (وَإِنْ تُطِيعُوهُ تَهْتَدُوا): যদি তার (নবিজীর) অনুসরণ করো, হিদায়াত পেয়ে যাবে (নূর:৫৪)।

একটি সুন্নাহকে বাঁচাবো বলে – শায়খ আতিকুল্লাহ

মানুষের জন্য প্রয়োজন আদর্শ ও নমুনা। আল্লাহ তাআলা মানুষের স্বভাবের মাঝে একটি শূন্যতা যেমন রেখেছেন তেমনি রেখেছেন পূর্ণতার একটি উপকরণ। শূন্যতাটি হচ্ছে, কোনো নমুনা ছাড়া মানুষ চলতে পারে না। আর পূর্ণতার উপকরণটি হচ্ছে অনুকরণের যোগ্যতা। স্বভাবগতভাবেই মানুষ অনুকরণপ্রিয়। অনুকরণের তার প্রয়োজনও আছে। স্বভাবের এই চাহিদা ও প্রয়োজনটি তখনই যথার্থরূপে পূরণ হয় যখন মানুষ জীবন ও কর্মের একটি উত্তম নমুনা খুঁজে পায় এবং তার অনুকরণ ও অনুসরণের তাওফীক-প্রাপ্ত হয়।

আল্লাহ তাআলা আমাদের জন্য সেই নমুনা বানিয়েছেন শেষ নবী, শ্রেষ্ঠ নবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে। তাঁর জীবন ও কর্ম, শিক্ষা ও আদর্শ মানবজাতির জন্য আসমানী নমুনা, যার অনুসরণ-অনুকরণের মধ্যেই মানুষের দো’জাহানের মুক্তি ও সাফল্য।

আল্লাহ তাআলা মানবজাতির হেদায়েতের জন্য যেমন আলকুরআনুল কারীম নাযিল করেছেন তেমনি কুরআনের শিক্ষা ও বিধানের বাস্তব রূপ হিসেবে দান করেছেন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নাহ ও উসওয়া। কুরআন মাজীদের শিক্ষা ও বিধানকে যখন সুন্নাহ ও উসওয়ার আলোকে জানা হবে ও মানা হবে তখন সেটাই হবে আল্লাহ তাআলার যথার্থ ফরমাবরদারী। এ ফরমাবরদারীর মাধ্যমেই মানুষের জীবন হয়ে উঠতে পারে সফল ও সুন্দর, নির্মল ও জ্যোতির্ময়।

জীবনের কোনো ক্ষেত্রই এই অন্বেষণ-অনুসরণের গণ্ডির বাইরে নয়। আমাদের চেতনা-বিশ্বাস, জীবন-দর্শন, জীবন বোধ, উৎসব-উপাসনা, পারস্পরিক সম্পর্ক, বিয়ে-শাদী, লেনদেন, নীতি-নৈতিকতা, আইন-বিচার, সবকিছুই এই অন্বেষণ-অনুসরণের গণ্ডির ভিতরে।

একটি সুন্নাহকে বাঁচাব বলে সিরিজের সকল পর্ব

Facebook Comments