কতো আশ্চর্যজনক এই অভিযাত্রা!

47

যার প্রথম ধাপ ছিল ‘ন্যাটো-সৈন্য’ রূপে ইরাকের মরুভূমিতে আবির্ভূত হওয়া। এরপর সেখান থেকে রোমান ক্যাথলিক গির্জায় পড়াশোনা এবং পুরোহিত হিসেবে দায়িত্ব পালন করা।

তৃতীয় ধাপে ইসলামের ছায়াতলে আশ্রয় গ্ৰহন করা। এরপর থেকে সক্রিয়ভাবে ‘দাওয়াহ ইলাল্লাহ’তে নিয়োজিত থাকা। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর হাদিস অনুসরণে ইসলামের বাণী ছড়িয়ে দেওয়া।

বর্তমানে মিসরের আল আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে পরিচালিত ‘মিশকাহ ইউনিভার্সিটি’ নামে অনলাইন ইউনিভার্সিটিতে ‘ইসলামিক বিজ্ঞানে’ BA করা।

বলছিলাম ছবিতে থাকা মার্ক আবদুল রহমান ব্রিসন-এর কথা!

মুসলমান হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন- ‘মুসলমান হওয়া আমার জীবনের সবচেয়ে বড় উপহার! আল্লাহ তায়ালার কাছ থেকে এর চেয়ে বড় উপহার এবং বরকত কল্পনাও করতে পারি না! একহাজার জনমেও আমি এর শোকর আদায় করে শেষ করতে পারব না।


Facebook Comments