দেখুন না কেমন ম্যাজিকের মত কাজ হয়!

37

মা খাবার খেতে গিয়ে গিলতে পারেনা। ফ্রিজ থেকে রান্না করার জন্য পোঁটলাটা বের করতে গিয়ে ফ্রিজের দরজা মেলে কতক্ষণ আনমনে দাঁড়িয়ে কি যেন ভাবে,তারপর টেনে কাছে নিয়ে আসা খাবারের বক্স কিংবা পোঁটলাটা তড়ক করে আরেকটু ভেতরে ঠেলে দিয়ে সজোরে দরজাটা আটকে দেয়। কারণ মায়ের চোখে তখন ভেসে উঠে তার সন্তানের এই খাবারটা অস্বাদনের চিত্রটা। ড্যাবডেবে চোখে গপাগপ সন্তান খাবার গিলছে আর মাঝেমাঝে সম্ভাষণ ছাড়ছে..ওহহ মা! আজকে রান্নাটা দারুণ হয়েছে! এটা আমার পছন্দের খাবার..! হলের/মেসের খাবারটা এমন বিচ্ছিরি ওয়াক!….

কিংবা স্ত্রী… ভালোমন্দ রান্নার হাতেখড়ি থাকলেই শুরু হয় একেকটা রেসিপির উত্থানপতন। প্রিয়জনের জন্য মজার খাবারটুকুর নিজের ভাগটাও বন্টন করে দিতে এক মুহূর্ত ভাবেন না। খাইয়েই যেন সুখ! আপনার দু’চারটা ছোটছোট প্রশংসা বাক্য আর চোখমুখের হালকা কিছু এক্সপ্রেশন তার কান পেতে থাকা উদগ্রীব মনকে উচ্ছলিত করে। এরপর থেকে সেও মায়ের মতই রক্ষণশীল হয়ে যায়,প্রিয় মানুষদের প্রিয় খাবারের আকর সাজায় দিবানিশি পরম যত্নে তৃপ্ত মনে। মা থেকে মেয়ে,মেয়ে থেকে স্ত্রী,স্ত্রী থেকে মা..
ঘুরেফিরে সব একই সূত্রে গাঁথা।

নারীর এমন স্নেহাশিস প্রিয়প্রীতি দেখে আমরা মুগ্ধ হই। নারীকে মমতাময়ী মা,পাগলি বোন,প্রেমময় স্ত্রী..নানান নামে উপস্থাপন করি। নারীর এমন স্নেহ মমতা পাগলামি প্রেম সব কিছুর উদ্রেক কিন্তু আপনার সেই প্রশংসা! আপনার কব্জি ডুবিয়ে খাওয়ার সেই অমোঘ দৃশ্য তার নরম হৃদয়ে স্পন্দন তোলে। খেয়ে আপনি যখন তৃপ্তির ঢেঁকুর তোলেন সশব্দে,তখন আপনাদের খাওয়া দেখে তার হৃদয়ে তৃপ্তির ঢেকুর উঠে নিরবে। রাঁধতে বসেও সে গুণগুণ করে গান গায় খুশখেয়াল মনে,সব যত্ন ঢেলে দিবে যেন প্রাণান্তকর প্রচেষ্টায়!

একটুখানি প্রশংসার বদৌলতে যদি নারীর ভেতর এতটা রূপরেখা সৃষ্টি করতে পারেন আপনি,তবে তাকে চেঞ্জ করতে,ইসলামের আলোয় আলোকিত করতেও এই টিপস ব্যবহার করুন। তার আমলগুলোর প্রশংসা করুন। হয়ত তার নামাযে গাফলতি,ইচ্ছেমত পড়ে,আবার আলসেমি করে। তাকে দুইতিন দিন নামাযের পর(কৃত্রিম মুগ্ধতা জড়ো করে হলেও) বলুন..তোমায় নামাযের পর কি পবিত্র সুন্দর লাগে মাশায়াল্লাহ! জান্নাতি হুরদের চেয়ে পবিত্র আর প্রশান্ত!

কিংবা তার বেসুরো গলার ভয়ে বা ভুলভাল তেলাওয়াত হয়ে যায় কিনা তার ভয়ে সে যখন কোরআন তেলাওয়াত এড়িয়ে যাবে নতুবা নিশ্চুপে পড়বে,তখন তাকে অভয় দিন। একটুখানি জোর করে হলেও তেলাওয়াত করান,তারপর মুগ্ধনয়ন নিয়ে প্রশংসা করুন…তোমার তেলাওয়াত তো অনেক সুন্দর! দাড়াও অমুক কারীর তেলাওয়াত ডাওনলোড করে দিই,ওনার তেলাওয়াত মনোযোগ দিয়ে শুনে উনার সুরটা নকল করার চেষ্টা করো,দেখবে আরও কি চমৎকার হয়ে যায় তোমার তেলাওয়াতের সুর!

কিংবা বোরখাপরে আপাদমস্তক ঢাকার পর একবস্তা প্রশংসা করে দিন… ইয়া আল্লাহ! তোমাকে বোরখাতে এত সুন্দর লাগছে কেন!!

দেখুন না কেমন ম্যাজিকের মত কাজ হয়!

আপনি তার রুপের প্রশংসা করলে সে যেমন রুপ সচেতন হয়ে উঠবে কিংবা কিছু ক্ষেত্রে অহংকারীও(এক্ষেত্রে ভারসাম্যপূর্ণ হোন)..তেমনি তার আমলের প্রশংসা করলে সে তার আমলের প্রতি হয়ে উঠবে আরো যত্নবান আরো প্রাণবন্ত!

চাঁদের নিজস্ব কোন আলো নেই। সূর্যের আলোয় নিজেকে মুখরিত করে অন্ধকারে সে আলো ছড়ায়,স্নিগ্ধ সে আলোর মুখোমুখি হয়ে আমরা জোছনা প্লাবনে ভিজি আর মুগ্ধ বিস্ময়ে কবিতা গানের বিশেষণে তাকে বিশেষায়িত করি। অথচ…তার পিছনে অবদান পুরোপুরিই সূর্যের।

নারীকে ভাল কিংবা মন্দ হিসেবে এই সূর্যের মত আপনিই গড়তে পারেন। আপনার তিরস্কার বক্রহাড় থেকে বানানো এই নারীকুলকে আরো বক্রতায় নিমজ্জিত করবে,আর প্রশংসা তাকে ভালোলাগার আমেজ দেবে,অনুপ্রাণিত করবে ভালো থাকার যত্নে,ভালো রাখার মন্ত্রে!

💘💘তোমরা তোমাদের স্ত্রীদের সাথে খুব ভালোভাবে ব্যবহার কর ও বসবাস কর। তোমরা যদি তাদের অপছন্দ কর তাহলে এই হতে পারে যে,তোমরা একটা জিনিসকে অপছন্দ করছ,অথচ আল্লাহ তার মধ্যে বিপুল কল্যাণ নিহিত রেখেছেন।
– সূরা নিসা(আয়াত-১৯)

Facebook Comments