১৮৫৭ সালের সিপাহী বিদ্রোহঃ দিল্লিবাসী সাধারণ জনগণের পরিণতি

491

একটা দেশের ক্ষমতা গুষ্টিবাদের হাতে কুক্ষিগত হয়ে থাকলে দীর্ঘমেয়াদী কি হতে পারে ইতিহাসে এর নজির রয়েছে ভূরি ভূরি। জনগণকে রাষ্ট্র ও রাজনীতিতে সংযুক্ত করতে না পারলে রাষ্ট্রের যেমন বিপদ, বিপদ জনগণেরও। জনগণের মধ্যে ‘আমাকে জানানো হয়নি’ বা ‘রাজনীতি বুঝিনা’ বা ‘আই হেইট পলিটিকস’ বলা লোকেরা বিপদে পরে সবচেয়ে বেশি।১৮৫৭ সালের সিপাহী বিপ্লবের প্রতিক্রিয়ায় সংঘটিত দিল্লি জেনোসাইডে এটাই ঘটেছিল।

দিল্লিতে যখন ব্রিটিশ সৈন্যরা কামানের গোলা নিক্ষেপ করছিল দিল্লির অধিবাসীরা মশকরা করে মজা লুটতেছিল। তাঁরা মনে করেছে এটা এক ধরনের আতশবাজি।সূফী ও উর্দু কবি খাজা হাসান নিজামি তাঁর Delhi Ki Jan Kuni (The Agony of Delhi) বইয়ে লিখেন (১);

”The residents of Delhi have always been known at times of joy and in times of hardship never to lose their sense of joy and leisure. When the British started shelling Delhi, the residents instead of feeling terrified or afraid looked at the spectacle as a show of fireworks. When the firing started they would climb on their roofs to see the shells coming they would then shout and point them out to each other and then wait to see where the shells were falling.” (P:27)

তাঁদের মজা এতেই সীমাবদ্ধ ছিলনা।যখন দিল্লিতে নির্বিচারে মানুষদের মারা হচ্ছিল তখনো তাঁদের কোন হুঁশ ছিলনা। প্রভাবশালী ও অভিজাত লোকদের গ্রেফতার করা হচ্ছিল, গুলি করে মেরে ফেলা হচ্ছিল।অথচ ফাঁসিতে ঝুলানোর আগের দিন রাতেও তারা দাবা ও অন্যান্য খেলায় ব্যস্ত ছিল। খাজা হাসান নিজামি লিখেন;

”The feeling of fun and leisure amongst the residents of Delhi was not limited to this spectacle, even after the capture of Delhi when people were being killed and murdered everywhere; the residents of Delhi were not cowered. Famous nobles from Delhi were captured, were tried and condemned to death but the night before they were to be hanged, they would pass their time playing chess, and other games such as Kunjafa, and Chaucer”. (P:28)

সিপাহী বিপ্লব সিপাহী বিদ্রোহ প্রজা
ইংরেজদের নির্যাতনের খণ্ডচিত্র

মুসলিমদেরকে দুনির্দিষ্টভাবে টার্গেট করে মেরে ফেলা হচ্ছিল। তাঁদেরকে ফাঁসিতে ঝুলানোর দৃশ্যটা ছিল মর্মান্তিক।তাঁদেরকে লাইন ধরে দাঁড় করানো হত।এক গ্রুপের সামনে অন্য গ্রুপকে মারা হত এবং এই দৃশ্য দেখতে বাধ্য করত। হাত বেঁধে কামানের সামনে দাঁড় করিয়ে রাখা হত ভিক্টিমদের।
এবং যখন কামান দাগানো হত সেই মানুষের শরীরটা উড়ে গিয়ে পরত শহরের বাহিরে।আর এই দৃশ্য দেখে মজা নিতে আসত সাধারণ ব্রিটিশরা,এসব দেখে তাঁরা আনন্দ পেত। খাজা হাসান নিজামি লিখেন;

”Opposite the Chandni Chowk Police Station there used to be a pond, this has now gone. On three sides of it the British had erected gallows for hanging people. At the time of the hangings, the arrangements were quite dreadful. The people who were to be hanged were made to stand in a line. Half of them were hanged and the other half were made to watch the fate that awaited them. Civilised nations do not act in this manner and consider this type of behaviour obnoxious.


এটা পড়ুন – মাদরাসা – ইতিহাসে ফিরে দেখা


The victims would be taken out of the Fort in a cart with their hands tied behind their backs. The British spectators would come around the Police Station to view the hanging. When the hanging took place the spectators would laugh with joy, and the body of the victim was thrown on the cart head down for burial outside the city” (P:34)

মা-বোন ও নারীদের অবস্থা ছিল সবচেয়ে করুণ। তাঁদের অনেকেই এমন ছিলেন যে ঘরের বাহিরে যায়নি, পর্দার মধ্যে ছিল।ঘরে ঘরে যখন ব্রিটিশ সৈন্যরা যেতে লাগল তাঁরা ধর্ষণ থেকে বাঁচতে, সম্মান, ইজ্জত বাঁচাতে পানির কুপগুলোতে লাফিয়ে পরতে লাগল। মরতে মরতে পুরো কূপগুলো এতটাই ভরে গিয়েছিল যে শেষের দিকে যারা লাফিয়ে পরত, পরত অন্য দেহের ওপর। মানব শীরের লাশে কূপ ভর্তি হয়ে গভীরতা কমে আসায় শেষের দিকে আত্মহত্যা করতে যাওয়া কেউ কেউ মরতনা। পরে তাদের অনেককেই আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

এর ওপর ছিল গণলুটপাট। পাঞ্জাবী শিখ, মুসলিম ও বেলুচিস্তান থেকে আগত সৈন্যদের লেলিয়ে দেয়া হয়েছিল।খাজা হাসান নিজামি’র বইয়ে একটা অংশ আছে যার শিরোনাম ‘How did the Hindus in Delhi become rich’। তিনি দেখিয়েছেন কিভাবে একটা সম্ভ্রান্ত জনগোষ্ঠী রাতারাতি ফকির, ভিক্ষুতে পরিনত হয়েছে। সিপাহী বিদ্রোহের পর দিল্লি’র মুসলিমেরা এমন একটি উদাহরণ। অথচ ৯০% এর বেশি জনগন এই বিদ্রোহের সাথেও ছিলনা, পাছেও ছিলনা।

৬ মাস পর স্যার লরেন্স যখন দিল্লির দায়িত্ব নিয়ে আসেন তিনি মুসলিমদের দিল্লিতে ফিরতে অনুমতি দেন। হাসান নিজামীর বর্ণনায় জানা যায় মাত্র কয়েক মাসে দিল্লির মুসলিম জনগোষ্ঠীর মাত্র ২৫% তাদের আবাসে ফিরে আসতে পেরেছিল। In short, the Mutiny which came as an angel of destruction for the Muslims became a Goddess of Wealth for its Hindu residents. (P:40)

এই ঘটনার ১০০ বছর আগে যখন ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী বাঙলা দখলের মাধ্যমে উপনিবেশের শুরু করে তখনো জনগণ ছিল নির্বিকার।পলাশীর জয়ের পর ১৭৫৭ সালে যখন ক্লাইভের বাহিনী মাত্র কয়েকশ সৈন্য নিয়ে মুর্শিদাবাদে ঢুকছিল, তখন রাস্তার দুই ধারে দাঁড়িয়ে মানুষজন তামাশা দেখছিল। ক্লাইভ বলেছিল জনগন যদি একটা করে পাথরের কণা নিক্ষেপ করত তাহলে আমরা মাটির সাথে মিশে যেতাম। রাজনৈতিকভাবে বিভাজিত, অসংযুক্ত, নিরাশক্ত বা অসচেতন জনগোষ্ঠী হলে যা হয়। কিন্তু এই জনগোষ্ঠী আরামে থাকেনি। মাত্র ১৩ বছরের মাথায়, ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর দেওয়ানী লাভের কয়েক বছরের মধ্যে, খাজনার নামে সীমাহীন লুটপাটের (২) কারণে দেশে দুর্ভিক্ষ নেমে আসে।তাতে বাঙলার ৩ ভাগের ১ ভাগ লোক উধাও হয়ে যায়।(৩)

অতীতের উদাহরণ কেন, মাত্র কয়েক বছর আগের সোমালিয়ার দিকে চেয়ে দেখুন।(৪) কিভাবে রাজনৈতিক পরিসর সংকুচিত হয়ে যাবার কারণে ধীরে ধীরে একটি সমৃদ্ধ রাষ্ট্র গৃহযুদ্ধের দিকে চলে গেল, যা থেকে দেশটি আজও বের হতে পারেনি।সেখানেও এখন দুর্ভিক্ষ।যার ভিক্টিম সাধারণ মানুষ। আমাদের নিজেদের উদাহরণও আছে।

আমি রাজনীতি করিনা? আই হেইট পলিটিকস? সময় যখন আসবে তখন এই মানসিকতার লোকেরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। যার কেক যত বড়, রাষ্ট্রে তাঁর তত বেশি স্টেইক। Remember!

নোটঃ

(১) Syed Khwaja Hasan Nizami, Delhi Ki Jan Kuni, Published by Ibn Arbi, 1922, Translated by A Sattar Kapadia as ‘The Agony of Delhi’ 2003,https://www.scribd.com/…/44684266/Agony-of-Delhi-Khwaja-Has…

(২) লুটপাট নিয়ে ক্লাইভের বক্তব্য দেখুন; https://www.facebook.com/…/a.10343474266…/1267382843325036/…

(৩) ১৭৬৫ সালে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী বাংলার দিওয়ানী লাভের মাত্র ৫ বছরের মাথায় দেশে দুর্ভিক্ষ দেখা দেয়, এর মধ্যেই চলতে থাকে ইংরেজদের লুটপাট, দেখুন;https://www.facebook.com/muldharabd/posts/1265585713504749

আরো দেখুন; The Bengal Famine: British engineered the worst genocide in human history for profit, http://www.muldharabd.com/?p=223

সৌজন্য – মূলধারা বাংলাদেশ

Facebook Comments