অন্যকে আহার করানো – একটি সুন্নাহকে বাঁচাবো বলে: ২

385

একটি সুন্নাহকে বাঁচাবো বলে –  ০২


অন্যকে আহার করানো
=======================
এক: অবদুল্লাহ বিন উমার (রা.) বর্ণনা করেছেন:
-এক লোক নবিজীকে (সা.) প্রশ্ন করেছে:
-কোন ইসলাম উত্তম ?
-তুমি আহার দান করবে। চিনে হোক না চিনে হোক, সালাম দিবে।

দুই: পরিবারের প্রয়োজন পুরো করার পর, উদ্বৃত্ত খাবার থাকলে তবেই অন্যকে আহার করাবে। যেমন: আশেপাশের গরীবকে, বাড়িতে আসা ভিক্ষুককে, মহল্লা পাহারা দেয়া প্রহরীকে, বাড়ির ঠিকা কাজের লোককে।
আবার বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশি, সহকর্মীও এর আওতাভুক্ত হতে পারে।

তিন: হাদীসে গরীব মানুষকেই খাওয়াতে হবে এমনটা বলা হয়নি। বড়লোককে খাওয়ানোও সুন্নাত। হাদীসের মূল সুর হলো, পরস্পরের মধ্যে ভালোবাসা সৃষ্টি করা।

চার: সালাম দ্বারাও পরস্পর মিল-মহব্বত সৃষ্টি হয়। উভয় সুন্নাতের মাঝে একটা অদৃশ্য যোগসূত্র আছে।

আমাদের শি‘আর (স্লোগান) হলো:
– ইন তুতীঊহু তাহতাদু (وَإِنْ تُطِيعُوهُ تَهْتَدُوا): যদি তাঁর (নবিজীর) অনুসরণ করো, হিদায়াত পেয়ে যাবে। (নূর:৫৪)

================
লেখক – শাইখ মুহাম্মদ আতিক উল্লাহ্‌
শিক্ষক – মাদরাসাতুল কুরআনিল কারীম,
শ্যামলী,ঢাকা।


একটি সুন্নাহকে বাঁচাব বলে সিরিজ

পর্ব ০১ – তাহলীলের সুন্নাহ
পর্ব ০২ –অন্যকে আহার করানো
পর্ব ০৩ – আযানের পাঁচ সুন্নাহ
পর্ব ০৪ – ইলম তলব করা
পর্ব ০৫ – মিলিয়ে দেয়া
পর্ব ০৬ – দ্রুত ইফতার করা

 

Facebook Comments